শিক্ষিত গৃহিণী ‘মা’

শিক্ষিত গৃহিণী ‘মা’

শকষত_গহণ_ম_Educated_home_Maker_f88m05
LifeSpring

শিক্ষিত গৃহিণী ‘মা’

“আমি পুরা একটা আইডেন্টিটি ক্রাইসিসে ভুগতে থাকি, যখন আমি একটা ব্লগে একজন মায়ের মাতৃত্ববোধের উপলব্ধি সম্পর্কে প্রথম পড়ি। উনি মনে করেন, তার পড়াশোনা, ডিগ্রি-রেজাল্ট সবই শুধুমাত্র সময় নষ্টের উপকরণ, যেহেতু উনি এখন বাইরে কিছু করেন না! এমনকি দাবি করেন, পড়াশোনা না থাকলে অনেক আগেই উনি ‘মা’ হতে পারতেন!

এই কথা পড়ার পর থেকেই আমি দুশ্চিন্তায় ভুগতে থাকি! আমি ৫০,০০০ ডলারের বেশি খরচ করেছি পড়াশোনার পিছনে, এমনকি ২৩ বছর বয়সে আমি একটা ৬ ডিজিট বেতনের চাকরি করতাম, আর এখন আমি কিছুই করছি না! আসলে আমি কি করছি!?” এক ব্লগে লিখেছেন Little Rock, Arkansas এর একজন ফটোগ্রাফার এবং লেখিকা, Madina Lawlis।

আমি কি শুধুই একজন বাসায় বসে থাকা মা? – মানুষের কথা আমাকে এমন ভাবা শুরু করতে বাধ্য করে! ইস! আমি যদি এই ‘শুধু’ শব্দটা আমার ডিকশনারি থেকে বাদ দিতে পারতাম! মানুষের কথা শুনে মনে হতে লাগল, শিক্ষিত হয়ে চাকরি ছাড়া ঘরে বসে বাচ্চা পালন করা মানে আমি মৃত, আমার জীবনে আর কিছুই বাকি নেই!

কিন্তু, চিন্তা করে দেখলাম, আমার একজন অত্যন্ত সহমর্মী, কেয়ারিং, ভালবাসাপূর্ন , বুদ্ধিমান ও ধর্মভীরু স্বামী পেয়েছি, চমৎকার সন্তান পেয়েছি যাদেরকে আমি সময় দিতে পারি, শিখাতে পারি, মনের মত করে গড়ে তুলতে পারি।

আমি মনে করি, পৃথিবীতে যা হয় অবশ্যই কোন না কোন কারনে হয়, এবং সবকিছুর পিছনে কোনো না কোনো ভালো দিক লুকিয়ে থাকে। অবশ্যই আমি যে বিপুল পরিমাণ অর্থের বিনিময়ে একটি ডিগ্রি অর্জন করেছি, পড়াশোনা করেছি, জ্ঞান অর্জন করেছি, সেটা কখনোই আমার সময়ের অপব্যবহার ছিল না! কারণ –

~ পড়াশোনা বছরগুলোতে, আমি বিপুলসংখ্যক বন্ধু বানিয়েছি
~ কর্মক্ষেত্রে চমৎকার কিছু বন্ধুর সাথে মিলিত হওয়ার সুযোগ পেয়েছি
~ গবেষণা করার জন্য জ্ঞান অর্জন করেছি
~ মানুষের সাথে কিভাবে মিশতে হয়, চলতে হয় তা শিখেছি
~ উপলব্ধি করেছি যে, জীবনে সুখে থাকার জন্য আমার শখগুলোকে পালন করা কতটুকু জরুরী
~ আমি শিখেছি কিভাবে টাকা পয়সা খরচ করতে হয়, এবং কিভাবে জমাতে হয়
~ আমি আরও শিখেছি যে, শুধুমাত্র টাকা দিয়ে সুখ কেনা যায় না
~ আমি দেশের ও দেশের বাইরের, সাম্প্রতিক বিষয়গুলো নিয়ে স্বামীর সাথে আলোচনা করার মত জ্ঞান অর্জন করেছি

হয়তোবা আমি যদি আমার শিক্ষাজীবনের সেই বছরগুলো অতিবাহিত না করতাম, আমার জীবনে আমার স্বামীর মত এমন লাইফ পার্টনার কখনো পেতামই না! বর্তমানে আমি বাচ্চাদের হোম স্কুলিং করাচ্ছি, যা হয়তোবা আমি শিক্ষা গ্রহণ না করলে কখনোই করতে পারতাম না!

আমি পেশায় একজন ফার্মাসিস্ট, আমি কয়েকদিন ফার্মাসিস্ট হিসেবে চাকরিও করেছি, আবার যে কখনো করবো না তা কিন্তু নয়! কিন্তু বর্তমানে সময়ে, আমার মূল কাজ ‘মা’ হিসেবে সময় দেয়া। আমি কৃতজ্ঞ সৃষ্টিকর্তার কাছে আমাকে এই সুযোগ দেয়ার জন্য, চমৎকার সন্তানদের জন্য! তারা ইতিমধ্যে এত দ্রুত বড় হয়ে যাচ্ছে, আমার মাঝে মাঝে মনে হয় – ইশ! আমি কিছু মিস না করে ফেলি!”

**লেখিকা বলেছেন, তিনি নিঃসন্দেহে কর্মজীবী মায়ের প্রতি সম্মান রাখেন এবং স্বীকার করেন তাদের পরিশ্রমের তুলনা হয় না। কিন্তু, প্রত্যেকের যাত্রাপথ ভিন্ন এবং কখনোই শুধুমাত্র চাকরি তার মাপকাঠি হতে পারে না!

Madina Lawlis
Madina is a writer and photographer from Little Rock, Arkansas.

সোর্স: MOTHERLY

Leave your thought here

Your email address will not be published. Required fields are marked *